সকল সংবাদ

কুষ্টিয়ায় প্রহরীকে হত্যার দায়ে ১ জনের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড

  admin2 ৭ মার্চ ২০২২ , ২:৩২:০০ 87

কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

কুষ্টিয়ার শহরের জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীর বাসভবনের পুকুরে মাছ চুরির প্রতিবাদ করায় প্রহরী মুনসুর আলীকে (৫০) এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যার দায়ে অপর প্রহরী জহির আহম্মেদ লাল্টু (৩৫) নামে এক আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

সেইসঙ্গে তাকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও একবছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। রোববার (০৬ মার্চ) বিকালের দিকে কুষ্টিয়ার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. তাজুল ইসলাম এ রায় দেন।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি জহির আহম্মেদ লাল্টু কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জুগিয়া দরগাপাড়া গ্রামের আবুল কাশেম পাগলার ছেলে। রায় ঘোষণার সময় আসামি আদালতে উপস্থিত ছিলেন। রায় ঘোষণার পরপরই দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের পুলিশ পাহারায় জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

আদালত সূত্রে জানা যায়, আসামি জহির আহম্মেদ লাল্টু ও নিহত মুনসুর আলী জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীর বাসভবনে পালাক্রমে মাস্টার রোলে পাহারাদারের চাকরি করতেন। ২০১২ সালের ১৫ জুলাই রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাত্রিকালীন দায়িত্বপালনকালে নির্বাহী প্রকৌশলীর বাসভবনের পুকুরে চুরি করে মাছ ধরছিলেন আসামি জহির আহম্মেদ।

এসময় মাছ চুরি করা দেখে ফেলে মুনসুর আলী। চুরির প্রতিবাদ করায় ১৬ জুলাই সকাল ৬টার দিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যা করে আসামি জহির আহম্মেদ। ওই দিন কুষ্টিয়া মডেল থানায় নিহত মুনসুর আলী স্ত্রী সালেহা বেগম মনি বাদী হয়ে জহির আহম্মেদ লাল্টুর বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন হয়।মামলার তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ২৭ মার্চ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা নাজমুল হুসাইন। সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে ০৬ মার্চ রায় ঘোষণার দিন ধার্য করেন। এ মামলায় সাক্ষীর সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে রোববার আদালত এ রায় দেন।

আদালতের পিপি অনুপ কুমার নন্দী বলেন, হত্যা মামলায় দোষী প্রমাণিত হওয়ায় আসামিকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিদের পুলিশ পাহারায় জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

আরও খবর:

Sponsered content